| ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী | শনিবার

একনেকে পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল ৪ লেন সড়ক অনুমোদন শিল্প বিকাশে পাল্টে যাবে, আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ

লক্ষন বর্মন, নরসিংদী : নরসিংদীর পলাশ উপজেলার পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল ৪ লেন সড়ক একনেকে অনুমোদন হওয়ায় গোটা জেলা জুড়ে বইছে আনন্দের জোয়ার। ৮৬৫ কোটি ৪৫ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ও অভ্যান্তরীণ আন্তজার্তিক কন্টেইনার টার্মিনালসহ শিল্পসমৃদ্ধ ডাঙ্গার সঙ্গে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সংযোগ স্থাপন সহ ঢাকা-গাজীপুরের দূরত্ব হ্রাস পাবে। শিল্প বিকাশে পাল্টে যাবে পলাশ উপজেলার আর্থসামাজিক অবস্থা। ফলে বহুল কাঙ্খিত প্রকল্পটি অনুমোদিত হওয়ায় উচ্ছাাসিত এলাকাবাসী মিষ্টি বিতরণ করছেন। রাস্তাটি বাস্তবায়ন হলে ঢাকা -নরসিংদী যেতে সময় লাগবে মাত্র ৩০ মিনিট। এছাড়া সিলেট, হবিগঞ্জ,বি-বাড়িয়া ও ভারতের আগরতলা গামী যাত্রীরাও অতি অল্প সময়ে রাজধাধানী ঢাকায় পৌছাতে পারবেন।
পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল সড়ককের দৈর্ঘ্য ২১ কিলোমিটার। দেশের বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান এ,কে খাঁন গ্রুপ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ও অভ্যান্তরীণ আন্তজার্তিক কন্টেইনার টার্মিনালসহ শিল্পসমৃদ্ধ ডাঙ্গার সঙ্গে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সাথে সংযুক্ত হওয়ার ফলে এটি গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে। প্রতিদিন বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের হাজারো মালবাহী গাড়ি চলাচল করে এই সড়ক দিয়ে। সম্প্রতি (গত মঙ্গলবার) প্রধান মন্ত্রী কতৃক একনেকে অনুমোদন হওয়া এই সড়ক উন্নয়নের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৬৫ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। গণমাধ্যমে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন জেলাবাসী। পলাশ উপজেলার আমদিয়া ও ডাঙ্গা ইউনিয়ন জুড়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা এলাকাবাসীর মধ্যে মিষ্টি বিতরণ করেন। তারা দীর্ঘদিন পর হলেও অবহেলিত এই সড়কটির উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, স্থানীয় এমপি কামরুল আশরাফ খান পোটনকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এলাকাবাসী।
সরকার ঘোষিত বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সংযুক্ত থাকায় সড়ক বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এটি। প্রতিদিন এলাকাবাসীর যাতায়াতসহ বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের হাজারো মালবাহী গাড়ি চলাচল করে এই সড়কে। সড়ক জোড়ে বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দের সৃষ্টি হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছিল গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি। ঝুঁিক নিয়ে যানবাহন চলাচল করায় প্রতিনিয়তই ঘটেছে দুর্ঘটনা। চলতি বর্ষা মৌসুমে সড়কটির অবস্থা হয়ে পড়ে একেবারেই নাজুক।
নরসিংদী সড়ক জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মনিরুজ্জামান বলেন, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নের সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পটি (চার লেন) একনেকে অনুমোদন হওয়ায় বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে। আমরা শ্রীঘ্রই কাজের জন্য টেন্ডার আহবান করবো।
জনগুরুত্বপূর্ণ প্রসকল্পটি অনুমোদন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য কামরুল আশরাফ খাঁন পোটন বলেন, সড়কটি বাস্তবায়ন হলে এলাকার অর্থনৈতিক কর্মকান্ড ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাবে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। একই সঙ্গে ঢাকার পূর্বাচলের ৩০০ ফুট সড়কের সঙ্গে প্রকল্পটির সংযোগ স্থাপনের জন্য শীতলক্ষা নদীতে সেতু ও অবশিষ্ট সড়ক নির্মাণের পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন তিনি।
#

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *