নরসিংদীতে হয়ে গেল ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগীতা

লক্ষন বর্মন, নরসিংদী প্রতিদিন : ঘোড়া শব্দটি উচ্চারণ করলেই মনে পড়ে যায় রাজা, জমিদার ও তাঁদের যোদ্ধাদের পৌরাণিক কাহিনী। সময়ের বিবর্তনে সবকিছুই হারিয়ে গেলেও ঘোড়াকে গ্রামবাংলার মানুষ এখনো ধরে রেখেছে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে। এরই ধারাবাহিকতায় হারানো ঐতিহ্যকে নতুন প্রজন্মের নিকট পরিচিত করার মাধ্যমে সুষ্ঠ বিনোদনের লক্ষ্যে নরসিংদীর মনোহরদীতে অনুষ্ঠিত হয়েছে ঐহিত্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগীতা।
বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলার মনোহরদী উপজেলার শুকুন্দির স্থানীয় যুব সমাজের উদ্যোগে রামচন্দ্রদী মাঠে আয়োজন করা হয় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতার। ঘোড়া দৌড় উপভোগ করতে উপস্থিত হয় বিভিন্ন বয়সের কয়েক হাজার নারী-পুরুষ। প্রতিযোগীতার উদ্বোধন করেন মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদউল্ল্যাহ। শুকুন্দি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতি সাদিকুর রহমান শামীমের সভাপতিত্বে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন থানা আওয়ামীলীগের সাবেক ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক বজলুল হক বজলু ।
এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক তৌহিদল আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এনামুল হক কামাল, ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আপেল মাহমুদ প্রমূখ।
ধুলোময় মাঠে এই ঘৌড়দৌড়ে অংশ নিতে নরসিংদী, গাজিপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও কিশোরগঞ্জ থেকে ঘোড়া নিয়ে হাজির হয় প্রতিযোগিরা। তিনটি গ্রুপে ভাগ হয়ে লড়াইয়ের জন্য মাঠে নামে ২২টি ঘোড়া। ঘোড়া দৌড় দেখতে স্থানীয় শুকুন্দির মাঠে আশপাশের গ্রামের বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষের ঢল নামে। এতে পুরো এলাকায় উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। জয়ের লক্ষ্যে প্রতিযোগীদের অদম্য চেষ্টা ও ঘোড়ার ক্ষিপ্ত দৌড় উপভোগ করে উপস্থিত দর্শকরা।
অংশগ্রহণকারী হাবীবুর রহমান বলেন, শুধু পুরস্কার পাবার আশায় নয় পুরণো ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে এবং মানুষকে বিনোদন দিতেই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের কথা জানালেন এক অংশগ্রহণকারী।
এলাকাবাসী সুরুজ আলী বলেন, এমন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে একদিকে যেমন বাঙ্গালীর ঐতিহ্য রক্ষা হবে একই সঙ্গে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে বাঙ্গালীর ইতিহাস সম্পর্কে। তাই প্রতি বছরই এমন প্রতিযোগিতা আয়োজন করে তাদের প্রতি আমাদের আহবান। ।
আয়োজক মো: বজলুল হক বজলু বলেন, গ্রামীণ ঐতিহ্য ধরে রাখা ও দর্শকদের আনন্দদানের পাশাপাশি সমাজের যুব সমাজকে সঠিক পথে আনার জন্যই ঐতিহ্যবাহি এ ঘৌড় দৌড় প্রতিযোগিতা।
মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহিদউল্ল্যাহ বলেন, এমন প্রতিযোগীতার মাধ্যমে গ্রামবাংলার ঐহিত্যবাহী খেলাগুলো সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া গেলে একদিকে যেমন বাঙ্গালীর ঐতিহ্য রক্ষা হবে অপরদিকে বিদেশী অপসংস্কৃতির আগ্রাসন ও যুব সমাজের অবক্ষয় দূর হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *