1. nahidprodhan143@gmail.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  2. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  3. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  4. narsingdipratidin.mail@gmail.com : narsingdi :
  5. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  6. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
  7. subeditor@narsingdipratidin.com : Narsingdi Pratidin : Narsingdi Pratidin
বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৩৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মুজিববর্ষে পিরোজপুর সদর উপজেলা ভূমি অফিসের উদ্যোগে  রোপণ পিরোজপুরে ভূমি অফিস পরিদর্শনে ডিএলআরসি : এলডি ট্যাক্স সফটওয়ারের পাইলটিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ  আমদিয়া ইউনিয়ন সবুজ বাংলা একতা সংঘের আয়োজনে মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে অধ্যক্ষ নুর হোসেন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ বেলাবতে আড়িয়াল খা নদী থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার রাজনীতিকে সৃজনশীল করা দরকার: মৎস্যমন্ত্রী বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলেই আ.লীগে অস্থিরতা শুরু: প্রিন্স আরও ৩০ জনের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল মাধবদীতে অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের ১৪৭-তম জন্মবার্ষিকী আজ

যে গ্রামে ৪০০ বছর ধরে জন্ম নেয়নি কোনো শিশু!

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত বৃহস্পতিবার, ২৪ মে, ২০১৮

রকমারি ডেস্ক,নরসিংদী প্রতিদিন,বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮:

দেখতে আর পাঁচটা সাধারণ গ্রামের মতোই। নাম শঙ্ক শ্যাম জি গ্রাম। কিন্তু এই গ্রামের রয়েছে অদ্ভুত এক রীতি। এখানে ৪০০ বছর ধরে কোনো শিশু জন্ম নেয়নি। ভারতের মধ্যপ্রদেশের রাজগড় জেলায় অবস্থিত গ্রামটি।

গ্রামের প্রবীণদের দাবি অনুযায়ী, ষোড়শ শতক থেকেই এমন রীতি চলে আসছে এখানে। গ্রামের লোকদের বিশ্বাস, এই গ্রামে ঈশ্বরের অভিশাপ রয়েছে। এই গ্রামে যদি কোনো শিশু জন্ম নেয়, তাহলে সেই শিশুটি বিকলাঙ্গ হয়ে যাবে, না হলে শিশুটির মা মারা যাবেন। গ্রামের প্রবীণদের কথায়, ষোড়শ শতকের এই গ্রামটিতে একটি মন্দির নির্মাণের কাজ চলছিল। সে সময় এক মহিলা গম ভাঙতে শুরু করেন। সেই আওয়াজের ফলে নির্মাণ কাজে ব্যাঘাত ঘটায় ক্ষুব্ধ হন স্বয়ং ঈশ্বর। এতে অভিশপ্ত হয় গোটা গ্রাম।

গ্রামপ্রধান নরেন্দ্র গুর্জর জানান, এই গ্রামে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের জন্য গ্রামের সীমানার বাইরে একটি ঘর তৈরি করে দেয়া হয়েছে। তাছাড়া ৯০ শতাংশ মহিলা সন্তান প্রসব করেন হাসপাতালে। জরুরি পরিস্থিতির সময় গ্রামের সীমানার বাইরে যে ঘরটি তৈরি করা হয়েছে, সেখানেই সন্তান জন্ম দেন প্রসূতিরা। গ্রামের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, গ্রামের মধ্যে মদ কিংবা মাংসও খাওয়া হয় না। ঈশ্বরকে সন্তুষ্ট রাখতেই নাকি এই রীতি চালু রয়েছে।

follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

প্রয়োজনে ফোন করুন- ০১৭১৩৮২৫৮১৩

শাহিন আইটির একটি অঙ্গ-প্রতিষ্ঠান