সাংসদের ছেলের কান্ড! তাঁতীলীগ নেতাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত

নরসিংদী প্রতিদিন,বৃহস্পতিবার ২৮ জুন ২০১৮ : নরসিংদীর মনোহরদীতে যুবলীগ নেতার পক্ষে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণার কাজ করায় অহিদুল আলম শামীম (৩৫) নামের এক তাঁতীলীগ নেতাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় সাংসদের ছেলের বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার হাতিরদিয়া বাস স্ট্যান্ডে এই ঘটনা ঘটে। আহত অহিদুল আলম শামীম মনোহরদী উপজেলার নোয়াদিয়া গ্রামের ইদ্রিস আলী মাস্টারের ছেলে ও উপজেলা তাঁতীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য।
আহত শামীম জানায়, গতকাল বুধবার সন্ধা সাড়ে ৭টার দিকে হাতিরদিয়া বাস স্ট্যান্ডে একটি হোটেলে বসে দলীয় কয়েকজনের কথা বলছিলাম। কিছুক্ষণ পর সেখান দিয়ে আমাদের স্থানীয় সাংসদ এড. নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন সাহেবের ছেলে মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদির একটি গাড়ি আসে। গাড়িটি কিছুদুর সামনে নিয়ে গাড়িটি থামিয়ে রাখে। পরবর্তীতে একটি মোটরসাইকেলে করে আরো ৩জন লোক সেখানে এসে হোটেলের ভিতর এসে আমার উপর অতর্কীত হামলা চালায়। কিছু বুঝে উঠার আগেই তারা আমাকে লাটি ও রড দিয়ে এলোপাথারী পিটাতে থাকে। এসময় সেখান থেকে প্রাণে বাঁচার জন্য দৌড়ে পালাতে থাকলে সাংসদের ছেলে সাদির নির্দেশে গাড়ি থেকে লাঠি নিয়ে তার সাথে থাকা পাভেলসহ ৪জন মিলে আমাকে মারতে থাকে। আমি তাদের হাত থেকে বাঁচার জন্য একটি ক্ষেতে গিয়ে গিয়ে পালানোর চেষ্টা করি। কিন্তু তাতেও রেহাই দেয়নি তারা। সেখানে আমাকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে তারা চলে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে শিবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এই ব্যাপারে মনোহরদী পুলিশকে অবগত করলে তারা এখনো পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেয়নি।
যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-শিক্ষা প্রশিক্ষণ ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক এবং নরসিংদী-৪ (মনোহরদী-বেলাব) আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কাজী মাজহারুল ইসলাম বলেন, আহত শামীম আমার একনিষ্ঠতম কর্মী। এই নিয়ে আমি সহ আমার কর্মীদের উপর ৫ বার হামলা চালানো হয়েছে স্থানীয় সাংসদের নির্দেশে। এটা একটি পরিকল্পিত হামলা। এই হামলাটিও স্থানীয় সাংসদের নির্দেশে হয়েছে। আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্শ্বান্বিত হয়ে এবং তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে আমার একটা ভাল অবস্থান থাকায় আমার এবং আমার নেতাকর্মীদের উপর বারবার হামলা করা হচ্ছে। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ বিচার দাবী করছি।
মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফখরুদ্দিন ভূঞা বলেন, আমি এমন একটা ঘটনা মোবাইলের মাধ্যমে শুনেছি। তবে কে বা কারা ঘটিয়েছে সেই সম্পর্কে অমি অবগত না। আমাদের কাছে এমন ধরনের কোন লিখিত অভিযোগ নাই। যদি এই ধরণের কোন অভিযোগ আসে তাহলে আমার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

#

Be the first to comment on "সাংসদের ছেলের কান্ড! তাঁতীলীগ নেতাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*