নরসিংদী-২ পলাশ আসনে মাঠে নামতে পারছেনা বিএনপি’ প্রচারনায় পুরোদমে আ’লীগ

স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী প্রতিদিন, শুক্রবার ২১ ডিসেম্বর ২০১৮: নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসছে ততই সারাদেশে নির্বাচনি হাওয়া বইছে। সকাল হতে গভীর রাত পর্যন্ত চায়ের দোকানে চলছে নির্বাচনি আড্ডা। চায়ের গরম কাপে চুমুকের তালে তালে চলছে নেতা কর্মী ও সমর্থকদের মুখে প্রিয় দল আর প্রার্থীর প্রশংসা। পাড়া বা মহল্লা ভিত্তিক রয়েছে দলীয় অস্থায়ী নির্বাচনী ক্যাম্প। সাউন্ডবক্সে বাজছে ভোট চেয়ে বা দলের নেতার প্রসংশা মুলক অডিও গান। পোস্টারে ছেয়ে গেয়ে রাস্তা ঘাট বাজার বন্দর সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো।
নরসিংদী-২ পলাশ আসনের কান্দাইল, সেরেন্দা, বনাইদ আখালিয়া, চাঁনগাও সহ আমদিয়া ইউনিয়নের চিত্রগুলো একটু ভিন্ন। এখানে চলছে শুধু একক প্রচার প্রচারনা।

বর্তমান সরকারের সাবেক এমপি আনোয়ারুল আশরাফ খান দীলিপ ব্যাস্ত হয়ে তার কর্মী সমর্থকদের দিয়ে প্রচার প্রচারনায় মাঠ গরম করে রাখলেও মাঠে তেমনটি লক্ষ্য করা যায়নি দশ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি নেতা কর্মীদের। লক্ষ্য করা যায়নি বিএনপি সমর্থিত কোন অস্থায়ী নির্বাচনি ক্যাম্প, পোস্টার লিফলেট বা মিছিল মিটিং। আর বিএনপির এ নীরবতাকে সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করেছে আ’লীগ প্রার্থী ডা.আনোয়ারুল আশরাফ খান দীলিপের সমর্থিত কর্মী সমর্থকরা। তারা রাত দিন নৌকার পক্ষে প্রচারনা চালিয়ে, পোস্টার সাঁটিয়ে, বিশেষ বিশেষ স্থানে নৌকার পক্ষে অস্থায়ী নির্বাচনী ক্যাম্প বানিয়ে তাতে সাউন্ডবক্সে দলীয় স্লোগান বাজিয়ে, বাড়ি বাড়ি নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে ও নৌকা প্রার্থীর লিফলেট বিতরনের মধ্য দিয়ে মাঠকে গরম করে রেখেছে।

এদিকে,বিএনপি নীরব ভূমিকায় কেন জানতে চাইলে আমদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি শাহিন খান বলেন, বর্তমানে বিএনপি একটি শক্তিশালী জনপ্রিয় ও বৃহত্তর রাজনৈতিক দল। এ দলটি নিঃশ্বেষ হবার মত কোন ছোট খাটো দল নয়।
বর্তমান দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়াতে সিইসি তার সঠিক ভূমিকা পালন করতে পারছেনা। ফলে নির্বাচনী মাঠে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলতে যা বুঝায় তার লেশ মাত্র নেই।আজকে সারাদেশে বিএনপি নেতা কর্মীদের মিথ্যা হামলা মামলা দিয়ে হয়রানি ও গ্রেফতার করে নির্বাচনী পথরোধ করার চেস্টা করছে সরকার। বিএনপি প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনায় বাধা দেয়া সহ তাদের উপর হামলা করছে আ’লীগের ছাত্রলীগ যুবলীগের কর্মীরা। ইতি মধ্যে এ আসনের এমপি প্রার্থী ড.আব্দুল মঈন খানের গণসংযোগ মিছিলে মোটরসাইকেল গাড়ী ভাংচুর ঘটনা ঘটেছে।

বেলাব ও পাঁচদোনায় হামলা করে আ’লীগ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ। দুই হামলায় প্রায় ৬০ জন ধানের শীষ সমর্থক আহত হয়,২০ টি মোটর সাইকেল ভাঙ্গচুড় সহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয় বিএনপি নেতা কর্মীরা। ফলে বিএনপি এখন কৌশল অবলম্বন করতে গিয়ে কিছুটা নীরব ভূমিকা পালন করলেও একেবারে চুপ নয়। তারা যার যার অবস্থান হতে ধানের শীষের প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *