নিজেদের প্রথম জয়ে ফিরল মাশরাফি বাহিনী

ক্রীড়া ডেস্ক | নরসিংদীর প্রতিদিন-
সোমবার, ০৭ জানুয়ারি ২০১৯:
লক্ষ্য ১৭০ রানের। খুলনা টাইটান্সকে কি শুরুটাই না এনে দিয়েছিলেন পল স্টারলিং আর জুনায়েদ সিদ্দিকী। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই শুরুর ভালোটা ধরে রাখতে পারল না মাহমুদউল্লাহর দল। তাদের ৮ রানে হারিয়ে এবারের বিপিএলে নিজেদের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার রংপুর রাইডার্স। আগের ম্যাচে তারা হেরেছিল চিটাগং ভাইকিংসের কাছে।

৬৭ বলের উদ্বোধনী জুটিতে স্টারলিং আর জুনায়েদ মিলে তুলে ফেলেছিলেন ৯০ রান। ৩০ বলে ৩ চার আর ১ ছক্কায় ৩৩ রান করা জুনায়েদকে ফিরিয়ে এই জুটিটি ভাঙেন বেনি হাওয়েল। তারপরই ছন্দটা হারিয়ে ফেলে খুলনা।

শফিউল ইসলামের বলে মাত্র ১ রান করে বোল্ড হন নাজমুল হোসেন শান্ত। পরের ওভারে মাশরাফি বোল্ড করেন ঝড় তোলা স্টারলিংকেও। ৪৬ বলে ৮ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় আইরিশ এই ব্যাটসম্যান করেন ৬১ রান। এরপর মাহমুদউল্লাহ চেষ্টা করেছিলেন। ১৭ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ২৪ রানে থাকা খুলনা অধিনায়ককে থামান ফরহাদ রেজা।

শেষ দুই ওভারে খুলনার দরকার ছিল ৩০ রান। হাতে ছিল ৬ উইকেট। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এমন ম্যাচ জেতা সম্ভব। কিন্তু দলের চাহিদা মেটাতে পারলেন না আরিফুল হক, ক্রেইগ ব্রেথওয়েটরা। ১৯তম ওভারের প্রথম বলেই আরিফুল (১৩ বলে ১২) শফিউলের দ্বিতীয় শিকার হন।

ফরহাদ রেজার করা শেষ ওভারে ব্যাটিংয়ে থাকা জহুরুল হক ৮ বলে করেন অপরাজিত ১২ রান। আর টানা চার ছক্কায় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতানো ক্রেইগ ব্রেথওয়েট অপরাজিত থাকেন ৪ বলে ৬ রানে। ৫ উইকেটে ১৬১ রানে থামে খুলনার ইনিংস।

এর আগে, টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমেছিল রংপুর রাইডার্স। এই ম্যাচেও ক্রিস গেইল একাদশে ছিলেন না। তবে রাইলি রুশো আর রবি বোপারার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ৩ উইকেটে ১৬৯ রানের চ্যালেঞ্জিং পুঁজি গড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

অথচ শুরুটা তেমন ভালো ছিল না তাদের। ২১ বলের উদ্বোধনী জুটিতে মেহেদী মারুফ আর রাইলি রুশো তুলতে পারেন কেবল ১৮ রান। যুক্তরাষ্ট্রের পেসার আলি খানের শিকার হয়ে মারুফ ফেরেন মাত্র ৫ রানে।

দলের রান বাড়ানোর চেষ্টা ছিল অ্যালেক্স হেলসের। তবে ৯ বলে একটি করে চার ছক্কায় ১৫ রান করা ইংলিশ ব্যাটসম্যানকে এলডিব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন আফগান চায়নাম্যান স্পিনার জহির খান।

দেখেশুনে খেলতে থাকা মোহাম্মদ মিঠুনও ভুল করে বসেন, ক্রেইগ ব্রেথওয়েটের লাফিয়ে উঠা বলে ব্যাট ছুুঁইয়ে দেন হঠাৎ। ১৭ বলে ৩ বাউন্ডারিতে তিনি করেন ১৯ রান।

তবে সতীর্থদের এই আসা যাওয়ার মাঝেও একটা প্রান্ত ধরে ছিলেন রাইলি রুশো। ওপেনিংয়ে নামা দক্ষিণ আফ্রিকান এই ব্যাটসম্যান চতুর্থ উইকেটে রবি বোপারাকে নিয়ে গড়ে তুলেন দুর্দান্ত এক জুটি।

৬১ বলের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে রুশো আর বোপারা মিলে যোগ করেন ১০৪ রান। যে জুটিই আসলে বড় সংগ্রহ এনে দিয়েছে রংপুরকে। ৫২ বলে ৮ চার আর ২ ছক্কায় রুশোর ব্যাট থেকে এসেছে হার না মানা ৭৬ রানের এক ইনিংস। ২৯ বলে ৩ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় বোপারা অপরাজিত ছিলেন ৪০ রানে।

খুলনা টাইটান্সের বোলারদের মধ্যে কেউই তেমন ভালো করতে পারেননি। ৪ ওভারে ৩০ রান খরচায় ১টি উইকেট নেন জহির খান। আলি খান ৩৫ আর ক্রেইগ ব্রেথওয়েট ৩৯ রানের বিনিময়ে নেন একটি করে উইকেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *