| ২২শে মে, ২০১৯ ইং | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৬ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী | বুধবার

আড়াইহাজারে মাদক ব্যবসায়ীর পক্ষ নেওয়ায় এএসআইকে জনতার ধোলাই

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন-
বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০১৯:
আড়াইহাজারে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর কাছ থেকে তালিকাভুক্ত এক মাদক ব্যবসায়ীর মোটরসাইকেল উদ্ধার করতে গিয়ে স্থানীয়দের রোষানলে পড়েন থানার এএসআই আমিনুল ইসলাম। এ সময় এএসআই আমিনুল ইসলাম বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর দিকে অস্ত্র তাক করলে তাকে উত্তম-মধ্যম দিয়ে ধোলাই করে জনতা। একই সময় এই পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে থাকা ওই মাদক ব্যবসায়ী সেরাজুলকেও পিটিয়ে আহত করে স্থানীয়রা। পরে ওই এএসআই এলাকাবাসীর কাছে হাত উঁচিয়ে মাফ চেয়ে নিজেকে রক্ষা করে থানায় ফিরে যান। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার বাজবী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের একাধিক সূত্র ও স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার বড় বিনাইরচর গ্রামের সেরাজুল ইসলাম আড়াইহাজার উপজেলার তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। সে মোটরসাইকেলে করে ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করত। কয়েকদিন আগে মোটরসাইকেল নিয়ে উপজেলার দুপ্তারা ইউনিয়নের বাজবী গ্রামে মাদক বিক্রি করতে গেলে সেরাজুলকে স্থানীয়রা ধরে পিটিয়ে মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করে একটি ওয়ার্কশপে দিয়ে দেয়। গত মঙ্গলবার দুপুরে মাদক ব্যবসায়ী সেরাজুলকে নিয়ে থানার এএসআই আমিনুল ইসলাম মোটরসাইকেলটি উদ্ধারে সিভিলে দুপ্তারা বাজারে যান। প্রথমে দুপ্তারা বাজারের এক মুরগি ব্যবসায়ীর হাতে হাতকড়া লাগিয়ে মোটরসাইকেলের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে তিনি এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না বললে তাকে লাঞ্ছিত করেন এএসআই আমিনুল। এ খবর আশপাশের দোকানদারের কাছে পৌঁছালে তারা এএসআই আমিনুলকে তার হাতকড়া খুলে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। এ সময় উত্তেজনাকর পরিস্থিতি এড়াতে মুরগি ব্যবসায়ী হাবিবুরের হাতকড়া খুলে দেওয়া হয়। পরে এএসআই আমিনুল বাজারের পাশে একটি ঘরে আড্ডারত কয়েকজন যুবককে মোটরসাইকেলটি তার কাছে দিয়ে দেওয়ার জন্য বলেন। মাদক ব্যবসায়ীকে সঙ্গে নিয়ে তার মোটরসাইকেল উদ্ধারে যাওয়ায় ওই যুবকরা এএসআই আমিনুলের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হন। এক পর্যায়ে এএসআই আমিনুলের সঙ্গে যুবকদের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। এ সময় এএসআই আমিনুল তার হাতে থাকা অস্ত্র তাক করে গুলি করার হুমকি দেন। এতে ওই যুবকরাসহ এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে এএসআই আমিনুল ও মাদক ব্যবসায়ীকে আটকে রাখে। এ সময় বিক্ষুব্ধরা মাদক ব্যবসায়ী সেরাজুলকে পিটিয়ে আহত করে। তাছাড়া এএসআই আমিনুলকেও উত্তম-মধ্যম দেওয়া হয়। পরে এএসআই হাত উঁচিয়ে মাফ চেয়ে ওই স্থান ত্যাগ করেন।

সেরাজুল ইসলাম তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী এবং তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে স্বীকার করে থানার এএসআই আমিনুল ইসলাম বলেন, মোস্তফা নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার ও সেরাজুলের মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করতে তিনি দুপ্তারা ও বাজবী এলাকায় অভিযানে যান। এ সময় স্থানীয় কয়েকজন যুবক তার পরিচয় না জানায় ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী তাকে উত্তম-মধ্যম দেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *