| ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২২শে সফর, ১৪৪১ হিজরী | মঙ্গলবার

অবশেষে সংসদে গেল নৌকার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন-
বৃস্পতিবার,২৫ এপ্রিল ২০১৯:
সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত এমপি জাহিদুর রহমান শপথ নিয়েছেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবনে তার দফতরে এই শপথবাক্য পাঠ করান। আর এই শপথের মাধ্যমে দীর্ঘ বিরতির পর নৌকার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতিক সংসদে ঠাঁই পেল। যদিও জাহিদুর রহমান জনগণের চাপে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে এই শপথ নিতে বাধ্য হয়েছেন বলে দাবি করেছেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জয়ীদের মধ্যে গণফোরামের সুলতান মনসুর ও মোকাব্বির খান এর আগেই শপথ নিয়েছেন। এবার শপথ নিলেন ধানের শীষের জাহিদুর রহমান। ঠাকুরগাঁও-৩ আসন থেকে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছিলেন তিনি। এবারের নির্বাচনে বিএনপি থেকে যে ছয়জন নির্বাচিত হয়েছিলেন তাদের মধ্যে তিনিই প্রথম শপথ নিলেন। তবে শুরু থেকেই বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল তাদের কেউ শপথ নেবেন না।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালেই জাহিদুর রহমান শপথ নেয়ার বিষয়ে তার আগ্রহের কথা জানিয়ে স্পিকারের নিকট চিঠি লেখেন। তখন বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার কোনো তথ্য পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে স্পিকারের একান্ত সচিব এম এ কামাল বিল্লাহ চিঠির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শপথ গ্রহণ শেষে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের জাহিদুর রহমান বলেন, এই শপথ দলের সিদ্ধান্তের বাইরেই। আমি দীর্ঘদিন তো অপেক্ষা করলাম। যেহেতু এমপি নির্বাচিত হয়েছি, এলাকার মানুষের প্রচণ্ড চাপ। গত ১৫ দিন ধরে ঢাকায় আছি। এলাকার মানুষের একটাই বক্তব্য, শপথ নিয়ে ফিরে আসেন। শপথ গ্রহণের আগে দলের কোনো পর্যায়ে কথা হয়েছে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, না, আগে বলেছি। দেখাও করেছি। কোনো প্রকারে সম্মতি দেয়নি। দলীয় সিদ্ধান্ত শপথ নেবে না। এখনো পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে শপথ নেয়াতে বহিষ্কার হবেন কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বিষয়ে দল যেন কোনো সিদ্ধান্ত নিতেই পারে। সেটা তো জেনেশুনেই শপথ গ্রহণ করেছি। দল যদি মনে করে বহিষ্কার করবে, করতেই পরে। বহিষ্কার করলেও কিন্তু আমি দলে আছি। আমি এই দলের একজন নিবেদিত প্রাণ। সেই ছাত্র জীবন থেকে দীর্ঘ ৩৮ বছর এই দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত। কাজেই বিএনপি আমাকে বহিষ্কার করলেও আমি তো বিএনপি থেকে বহিষ্কার হব না। আমি আছি। তিনি বলেন, জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছেন। তাদের প্রত্যাশা আমি যেন শপথ গ্রহণ করে এলাকা ও দেশের সম্পর্কে ভূমিকা পালন করতে পারি।

সাংবাদিকদের জবাবে জাহিদ বলেন, দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে মাঠে লড়াই করেছি। আমি এবার দিয়ে চতুর্থবার নির্বাচন করলাম। এই আসনটি আমাদের বিএনপির ছিল না। স্বাধীনতার পর থেকে এ আসনটি আওয়ামী লীগের। এই প্রথম বিএনপি বিজয় হতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, আমার নেত্রী একজন বয়স্ক নারী, ৭৩ বছর বয়স। উনাকে যেন গণতন্ত্রের স্বার্থে মুক্ত করে দেয়া হয়, সংসদে এই আহ্বান জানাব। এটাই আমার এমপি হিসেবে প্রথম অঙ্গীকার। আর এলাকার হাজার হাজার নিরপরাধ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান করব। বলব, আপনি এগুলো দেখেন। এগুলোর বাদী পুলিশ। পুলিশ যা করেছে সব মিথ্যা মামলা করেছে। আপনার লোক কোন মামলা করেনি। এটা দেখা উচিত। গণতন্ত্রের স্বার্থে সেসব মামলা প্রত্যাহারের দাবি রাখব।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *