| ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৭ই জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | সোমবার

মনােহরদীতে অপহৃত ব্যবসায়ী উদ্ধার, মনােহরদী পৌর আ: লীগের সভাপতি’র ছেলেসহ ৫ অপহরণকারী গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবদক। নরসিংদী প্রতিদিন-
সোমবার ৫ আগস্ট ২০১৯:
নরসিংদীর মনাহরদীতে দুই কােটি ২৫ লাখ মূল্যের জমি লিখে নেয়ার উদ্দেশ্যে মিলন খান (৫০) নামে এক ব্যবসায়ীকে অপহরণের পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। ব্যবসায়ী মিলন খান মনােহরদী উপজেলার নামা গােতাশিয়া গ্রামের মৃত. করম আলী খান এর ছেলে।
রবিবার (৪ আগস্ট) সকাল মনােহরদী বাসষ্ট্যান্ড থেকে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মুখে তাকে অপহরণ করা হয়, পরে বিকালে তাকে উদ্ধার করে মনোহরদী থানা পুলিশ। এ ঘটনায় রবিবার রাতে ৫ অপহরণকারীক গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলাে-মনােহরদী উপজেলার কােচেরচর গ্রামের জয়নুদ্দিনের ছেলে আলম শেখ, মনােহরদী পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাে. কফিল উদ্দিনের ছেলে আরিফ আল কফি, সল্লাবাইদ গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে বাপ্পী, বিরিক এর ছেলে টিপু, সুলতান উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম। আজ সােমবার গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতে পাঠানাে হলে বিচারক তাদরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
মনােহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাে. মনিরুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ভুক্তভােগী ব্যবসায়ীর পরিবার ও পুলিশ জানায়, ব্যবসায়ী মিলন খান এক বছর আগে মনােহরদী বাসষ্ট্যান্ড সংলগ তার সাড় সাত শতাংশ জমি দুই কােটি ২৫ লাখ টাকা দাম নির্ধারণ করে পার্শ্ববর্তী কাপাসিয়া উপজেলার দক্ষিণগাঁও গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে আজম সরকারের কাছে বিক্রির জন্য মৌখিকভাব চুক্তি করেন। এসময় আজম সরকার জমির মালিক মিলন খানকে ৫৭ লাখ টাকা নগদ দেন এবং বাকী টাকা সাতমাস পরিশােধ করার পর জমি রেজিষ্ট্রি করার সির্দ্ধান্ত হয়। কিন্তু আজম সরকার বায়নার ৫৭ লাখ টাকা দিয়েই উক্ত জমি দখল নিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণর কাজ শুরু করেন। বর্তমান উক্ত ভবনর দ্বিতীয় তলার ছাদের কাজ শেষ করে তৃতীয় তলার কাজ চলমান। এক বছর অতিক্রম হলও আজম সরকার বাকী টাকা পরিশাধ করেননি। জমির মালিক মিলন খান তার পাওনা টাকার জন্য বারবার তাগিদ দিলেও কর্ণপাত করেননি আজম সরকার। বরং স্থানীয় কয়েকজন সন্ত্রাসী সাথে নিয়ে জােরপূর্বক ভবনের কাজ চালিয়ে যেতে থাকে। তাছাড়া সে নিজেকে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সােহেল তাজের আত্মীয় বলে পরিচয় দিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে।
রবিবার সকালে জমির মালিক মিলন খানকে মােবাইল ফােনে আজম সরকার জানান, আজ জমির পাওনা টাকা পরিশােধ করে জমি রেজিষ্ট্রি করা হবে। তার কথা অনুযায়ী মিলন খান সকাল নয়টায় মনােহরদী বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় উপস্থিত হলে আজম সরকার ও তার সহযােগী ১০/১২ জন সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে মিলন খানকে পাইভেটকারে তুলে নিয়ে যায়। পার্শ্ববর্তী গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার দক্ষিণগাঁও গ্রামের মরিয়ম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশন ভবনের একটি কক্ষে নিয়ে মিলন খানকে আটক করে ভয়ভীতি দেখিয়ে পাঁচটি খালি ষ্ট্যাম্প স্বাক্ষর নেয়া হয়। খবর পেয়ে মিলন খানের ছােট বােন মনােহরদী থানায় লিখিত অভিযােগ দায়ের করলে পুলিশ বিকালে মিলনকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে।
মনােহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাে. মনিরুজ্জামান বলেন, অপহরণের অভিযােগ পেয়ে পুলিশ কাপাসিয়া উপজেলার দক্ষিণগাঁও থেকে অপহৃত মিলন খানকে উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় রাতেই মিলন খান বাদী হয়ে মামলা দায়ের পর পাঁচ আসামীকে আটক করে আজ সকাল আদালত পাঠানা হয়। বিচারক তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *