| ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৭ই জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী | সোমবার

ঈদ যাত্রায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনে বাড়ি ফিরছে যাত্রীরা

সাব্বির হোসেন | নরসিংদী প্রতিদিন- শনিবার, ১০ই আগস্ট, ২০১৯:
আর মাত্র ১ দিন পরেই দেশে ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে। এই ঈদকে সামনে রেখে ট্রেন যাত্রায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাজধানী থেকে বাড়ি ফিরছে যাত্রীরা।
আজ (১০ আগস্ট) শনিবার ভোর থেকেই বাস ও লঞ্চের পাশাপাশি ট্রেন চড়ে পরিবার-পরিজনের সাথে ঈদ উদযাপন করতে ঢাকা ছাড়ছেন অনেকেই। সেই সাথে চিরচেনা ঢাকা অনেকটাই ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে।

শুক্রবার থেকে সরকারি ছুটি শুরু হলেও বেসরকারি চাকরি জীবিরা অনেকেই আজ বাড়ি ফিরতে ভিড় করেছেন। সকাল থেকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে কয়েকটি ট্রেন ছাড়তে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে।

সকালে সরেজমিনে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে দেখা যায় ঘরমুখো মানুষের ভিড়। এ স্টেশন থেকে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা স্বাচ্ছন্দ্যে ট্রেনে উঠতে পারলেও বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন আসার পর দৃশ্যপট পাল্টে যায়। এই স্টেশনে আন্তঃনগর ট্রেন ও লোকাল ট্রেন গুলোতে উপচে পড়া যাত্রীদের ভিড় ছিল। ট্রেনের কোথাও যেন তিল ধারণের ঠাঁই নেই। ট্রেনের ভিতর জায়গা না পেয়ে শত শত পুরুষ যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনের ছাদে উঠেছেন। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন নারী ও শিশু যাত্রীদের দেখা গেছে।এমন পরিস্থিতিতে ট্রেনে উঠতে গিয়ে অনেক কষ্টের মুখোমুখি হতে হচ্ছে যাত্রীদের।

ট্রেন যাত্রী শিমু আক্তার জানান, ট্রেনের টিকিট কাটার পরেও নিজের আসন খুঁজে বের করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। নারী যাত্রীদের জন্য ঈদ যাত্রা অনেকটাই দুর্ভোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারপরও যানজট বিহীন কম সময়ের মধ্যে গ্রামের বাড়িতে পাড়ি জমাতে পারবো এটা অনেকটাই স্বস্তির বিষয়।
পারভেজ আহমেদ নামে আরেক যাত্রী জানান, ট্রেনে উঠার পর অনেকটাই ভালো লাগছে। যানজটের এই শহরে ট্রেনের উঠার খানিকটা সময়ের কষ্ট তেমন কিছু নয়।

ট্রেনে ছাঁদে উঠা যাত্রী আরিফুল হক জানান, ট্রেনের ভিতরে জায়গা না পেয়ে বাধ্য হয়েই ঝুঁকি নিয়ে ছাঁদে উঠতে হয়েছে। এ ছাড়া ট্রেন যাত্রায় আর কোন পথ খোলা ছিলনা।

এদিকে কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে আইন- শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিরাপত্তা জোরদারের বিষয়টি চোখে পড়ার মতোই। যাত্রীদের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে কাজ করে যাচ্ছে তারা।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *