বৃহস্পতিবার | ৬ই আগস্ট, ২০২০ ইং |

বাংলাদেশে সকল ক্ষেত্রে দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে—কৃষিমন্ত্রী

এস এম প্রভাত, আড়াইহাজার থেকে:  বিএনপি আন্দোলনের নামে দেশকে অশান্ত করে চায় এমনটিই মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক এমপি। তিনি বলেন, জনগণ থেকে প্রত্যাখান হয়ে বিএনপি হত্যা, খুন, বোমাবাজি ও সন্ত্রাস করে দেশকে পেছনে দিয়ে নিয়ে যাওয়ার অপতৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে। ২০১৫ সালে আন্দোলনের নামে বিএনপি জামাত ১৫০ জন নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। গত ১১ বছরে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ পরিচালনায় বাংলাদেশে সকল ক্ষেত্রে দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে যার ফলে ব্যাপক সাফল্য এসেছে। তাই এদেশের জনগন বিএনপি থেকে একেবারেই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

বোরবার সন্ধায় সাতটার দিকে আড়াইহাজার উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা এস এম মাজহারুল হক অডিটরিয়ামে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।  

মজুরি খরচ বেশি হওয়ায় উৎপাদন খরচ বেশি হচ্ছে, উল্লেখ করে ড.আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা চাই কৃষক ন্যায্যমূল্য পাক। এটাই সরকারের নীতি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণে যাব। ধান লাগানো ও ধানকাটার যন্ত্রের দাম অনেক বেশি। আমরা ধান লাগানো ও কাটার যন্ত্র কেনার ক্ষেত্রে কৃষকদের ভর্তুকি দেব। আমরা উভয়সংকটে পড়েছি। আগে ধান উৎপাদন হতো না, দুর্ভিক্ষ হতো। সারা বিশ্বে আমরা ক্ষুদা, মন্দা আর দুর্ভিক্ষের দেশ হিসেবে পরিচিত ছিলাম। শেখ হাসিনার সরকার কৃষকের সর্বোচ্চ সুুবিধা দেয়ার ফলে দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। 

গত ১১ বছরে সারের দাম এক টাকাও বাড়েনি উল্লেখ করে ড.আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গত ১৬ ডিসেম্বর থেকে কেজি প্রতি ৯ টাকা কমিয়ে ২৫ টাকা থেকে ১৬ টাকা করা হয়েছে। তবে ডিএপি সারে ১৮ শতাংশ নাইট্রোজেন (অ্যামোনিয়া ফর্মে) এবং টিএসপি সারের সমপরিমাণ ফসফেট থাকায় সারের দাম পড়ে প্রতি কেজি ১২ টাকা। এটি সম্ভব হয়েছে কৃষকবান্ধব  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আকাশ ছোঁয়া হৃদয়ের জন্যে। 

সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু বলেন, সাহসী নেতৃত্ব ছাড়া দেশ এগিয়ে যেতে পারে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে দেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে। আর তার সুযোগ্য সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয় দেশকে ডিজিটাল করে তুলেছেন। যার সুফল এরইমধ্যে বাংলাদেশের মানুষ ভোগ করতে পারছে।
সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ ডা. মোঃ আবদুল আজিজ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা দীপক কুমার বনিক (দীপু), উপজেলা চেয়াম্যান মুজাহিদুর রহমান হেলো সরকার, সাবেক চেয়ারম্যান শাহজালাল মিয়া, ডা. সায়মা আফরোজ ইভা, জেলা পরিষদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম ভূইয়া, খোরশীদ আলম সরকার, পৌর মেয়র সুন্দর আলী, হালিম সিকদার, ইউপি চেয়ারম্যান আমানউল্যাহ আমান প্রমুখ। এর আগে কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বিশনন্দী এলাকা প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ ফলিত, পুষ্ঠি ও গবেষনা ইনস্টিটিউটের প্রধান কার্যালয় পরিদর্শন করেন। 

follow and like us:
0