1. nahidprodhan143@gmail.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  2. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  3. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  4. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  5. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  6. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
  7. subeditor@narsingdipratidin.com : Narsingdi Pratidin : Narsingdi Pratidin
রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন

পলাশের ২টি ইউনিয়ন সহ ২৬ জেলার পাঁচ শতাধিক ইউপিতে ভোট এপ্রিলে

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | মঙ্গলবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

পাঁচ শতাধিক ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) আগামী এপ্রিলে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। আগামী মে মাসে মেয়াদোত্তীর্ণ বিবেচনায় নির্বাচন কমিশন (ইসি) ওই সংখ্যা নিধারণ করেছে। আগামী ২ মার্চ সারা দেশের হালনাগাদ চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে। এর পরপরই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সঙ্গে মেয়াদোত্তীর্ণ কিছু পৌরসভার তফসিল দেবে ইসি।

এসব নির্বাচনের তফসিল ও মেয়াদোত্তীর্ণ তালিকা চূড়ান্ত করার জন্য বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সভায় বসছে কমিশন। বেলা তিনটায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় দুটি বিষয়বস্তু নির্ধারণ করা হয়েছে- একটি ইউনিয়ন পরিষদ ও দ্বিতীয় পৌরসভা। গত সোমবার সিইসি ও কমিশনারদের কাছে মিটিংয়ের কার্যপত্র বিতরণ করা হয়েছে। সেখানে ইউনিয়ন পরিষদের তালিকায় নির্বাচন উপযোগী ৪৭৯টির নাম রাখা হয়েছে বলে কমিশনের একজন যুগ্ম সচিব জানিয়েছেন। তালিকায় বিশেষ করে উপকূলীয় ও দুর্গম এলাকাকে বেছে নেয়া হয়েছে। এসব ইউনিয়ন ও পৌরসভা নির্বাচন ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ও ব্যালটে অনুষ্ঠিত হবে। তবে ইউপির যে প্রাথমিক তালিকা করা হয়েছে, তা থেকে ইউপির সংখ্যা কিছুটা কমতেও পারে বলে জানা গেছে।

তালিকা পর্যালোচনায় পাওয়া তথ্যে দেখা গেছে, ঢাকাসহ মোট ২৬ জেলাকে নির্বাচন করা হয়েছে। তবে মামলা, পৌরসভা গঠন, সীমানাসংক্রান্ত জটিলতা এবং ভোটের আগের রাতে ব্যালটে সিল মারা, ফল পাল্টে দেয়ার চেষ্টাসহ নানা কারণে স্থগিত হওয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময় উপযোগী বিবেচনায় অন্য কোনো ধাপে করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত রয়েছে ইসির।

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলায় ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে শ্যামনগর সদর, ভুরুলিয়া ও ঈশ্বরীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সীমানাসংক্রান্ত মামলা ও নতুন পৌরসভা গঠনের জন্য ইসি স্থগিত রাখছে বলে জানিয়েছেন নির্বাচনী শাখার একজন কমকর্তা। এ ছাড়া ব্যালটে ভোটের আগের রাতে নৌকার প্রার্থী থানার ওসিকে সঙ্গে নিয়ে ৫ নম্বর কৈখালী ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডে ব্যালটে সিল মারার কারণে (১, ২ ও ৪) নির্বাচন স্থগিত হলে বাকি ছয়টি কেন্দ্রে নিয়মানুযায়ী ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এ ইউপিতে পরবর্তী সময়ে ৩০ অক্টোবর ভোট অনুষ্ঠিত হয় এবং পর্ষদের প্রথম সভা বসে ৭ ডিসেম্বর ’১৬। এ কারণে পরবর্তী কোনো ধাপে কৈখালী ও রমজাননগর ইউপির ভোট অনুষ্ঠিত হবে। তবে শ্যামনগরের বাকি ৭টি ইউনিয়ম নুরনগর, গাবুরা, পদ্মপুকুর, কাশিমারী, মুন্সিগঞ্জ, আঠুলিয়া ও বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের নির্বাচন আগামী এপ্রিলে রমজানের আগে অনুষ্ঠিত হবে।

এ ছাড়া সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন, কলারোয়ার ১০টি, তালার ১১টি, দেবহাটার ৪টি ও কালীগঞ্জের ১২টি ইউপির সবকটিতে ভোট নেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার আটলিয়া, ভাণ্ডারপাড়া, ধামালিয়াসহ ১৪টি ইউপির সব, কয়রার পানখালী, দাকোপ, লাউডোবাসহ নয়টি ইউনিয়ন, বটিয়াঘাটার গংগারামপুর, বালিয়াপাংগা ও আমিরপুর ইউপি এবং দিঘলিয়ার গাজীরগাট, বারাকপুর, দিঘলিয়া, সেনহাটা, আড়ংঘাটা ও যোগীপুল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হবে প্রথম ধাপে।

বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটের ৭টি, মোল্লারহাটের ৬টি, চিতলমারীর ৭টি, বাগেরহাট সদরের ৯টি, কচুয়ার ৭টি, রামপালের ১০টি, মোংলার ৬টি, মোরেলগঞ্জের ১৬টি এবং শরণখোলার ৪টি ইউনিয়নে ভোট করার চিন্তা করছে ইসি। বরিশাল সদর ইউপির ৮টিতে, বাকেরগঞ্জ ১১টি, উজিরপুরের ৬টি, মুলাদীর ৬টি, মেহেন্দীগঞ্জের ৫টি, বাবুগঞ্জের ৪টি, গৌরনদীর ৭টি, হিজলার ৪টি, অগৈলঝাড়ার ৩টি ও বানারীপাড়ার ৭টি ইউপিতে প্রথম ধাপে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। পটুয়াখালী উপজেলার (দুমকি, বাউফল, দশমিনা, গলাচিপা উপজেলা) সব ইউনিয়নে ভোট অনুষ্ঠিত হবে প্রথম ধাপেই। পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া, ইন্দুরকানি, সদর, মঠবাড়িয়া, নেছারাবাদ, কাউখালী ও নাজিরপুরে যথাক্রমে ৫টি, ১টি, ৪টি, ৬টি, ১০টি, ২টি ও ৪টি ইউপিতে ভোট হওয়ার কথা রয়েছে। ঝালকাঠি সদরের ৯টি, নলছিটির ১০টি, রাজাপুরের ৬টি ও কাঠালিয়ার ৬টি ইউপিতে ভোট হবে। ভোলার সদর উপজেলার ২টি, দৌলতখানের ৫টি, বোরহারউদ্দিনের ২টি, তজুমদ্দিনের ৩টি ও চরফ্যাশনের ৭টি ইউপিতে ভোট হবে। ঢাকার দোহারের ৫টি ও কেরানীগঞ্জের ৭টি রয়েছে। মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানের ৮টি ইউনিয়ন, নরসিংদীর পলাশের ২টি ইউনিয়ন, গাজীপুরের কালীগঞ্জের ৭টি, টাঙ্গাইলের নাগরপুরের ১১টি, মাদারীপুর সদরের ৮টি ও শিবচরের ১৩টি, মৌলভীবাজারের জুড়ীর জায়ফরনগর, সুনামগঞ্জের ছাতকের ৬টি ইউপি, চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার চন্দ্রঘোনা, চাঁদপুরের হাইমচরের আলগী দুর্গাপুর উত্তর, লক্ষ্মীপুরের রামগতির ২টি ও কমলনগরের ৩টি ইউনিয়ন, নোয়াখালীর সুবর্ণচরের ৬টি, হাতিয়ার ৭টি, কক্সবাজারের পেকুয়ার টেটং ও মহেশখালীর ৩টি, কুতুবদিয়ার ৬টি ও টেকনাফের ৫টি ইউপি নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিবের করা এপ্রিলে ভোটারের জন্য করা তালিকায় স্থান পেয়েছে।

এ ছাড়া রংপুরের পীরগাছার কল্যাণীসহ অন্য ৮টি ইউনিয়ন ও পীরগঞ্জের চৈত্রকোল, চতরা, কাবিলপুর ও টুকুরিয়া ইউনিয়ন, কুড়িগ্রামের চরবাজিরপুরের মোহনগঞ্জ, কোদালকাটি ও চর বাজিরপুর, দিনাজপুরের বোচাগঞ্জের নাফানগর, ইশানিয়া, মুশিদহাট, আটগাঁও, ছাতাইল ও রণগাঁও এবং বগুড়ার দুপচাঁচিয়ার দালোড়াসহ অন্য ৫টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট এপ্রিলে করার প্রাথমিক তালিকায় রাখা হয়েছে।

জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক দেবনাথ রায় বলেন, আগামী মে মাসে মেয়াদোত্তীর্ণ হবে এমন ৪৭৫-৪৮০টির মতো নির্বাচন করার চিন্তা করছে কমিশন। বেশিও হতে পারে। এগুলোতে রোজার আগে নির্বাচন হবে। আর তফসিল ঘোষণা করা হবে ২ মার্চ চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের পর। কারণ তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থীদের ভোটার তালিকার সিডি সরবরাহ করতে হয়। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনের সময় পেছালে ইউনিয়ন পরিষদের সংখ্যা বাড়বে।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত ছয় ধাপে ৪ হাজার ৩২১টিতে ভোট গ্রহণ করা হয়। এর মধ্যে ওই বছরের ২২ মার্চ প্রথম ধাপে ৭৫২টি ও একই বছরের ৩১ মার্চ দ্বিতীয় ধাপে ৬৮৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ), আইন, ২০০৯ (৩) অনুযায়ী, আগামী ২১ ও ৩০ মার্চের মধ্যে এ দুই ধাপের ভোট করার বিধান রয়েছে। কিন্তু ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ চলমান থাকায় মার্চে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন করা সম্ভব হবে না বলে ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে নির্বাচনের সময় ৯০ দিন পর্যন্ত বাড়াতে অনুরোধ জানিয়েছে ইসি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নির্বাচন কমিশনের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ প্রতিবেদককে বলেন, স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী বর্তমান চেয়ারম্যান ও সদস্যদের দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম সভা থেকে মেয়াদ পাঁচ বছর। এ সময়কাল বিবেচনা করে আগামী মে মাসে মেয়াদ শেষ হচ্ছে এমন সব ইউনিয়ন পরিষদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। এতে দেখা গেছে, ২৬টি জেলার ৪৭৯টি ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মেয়াদ এপ্রিল ও মে মাসের বিভিন্ন সময়ে শেষ হবে। ওই সব ইউপিতে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নির্বাচনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

তারা আরো জানান, আগামী ১৪ এপ্রিল রোজা শুরু হতে পারে- এমন বিবেচনায় আগামী ৭ এপ্রিল ভোট গ্রহণের জন্য ‘ভালো সময়’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে মার্চের প্রথম সপ্তাহে তফসিল ঘোষণা করতে হবে। ওই নির্বাচনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদভিত্তিক ছবিসহ ও ছবি ছাড়া- এই দুই ধরনের ভোটার তালিকার সিডি তৈরি করতে হবে। এসব সিডি তৈরির কাজ শুরু করতে হবে আগামী ২ মার্চ চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশের পর। ওই সিডি তৈরির সক্ষমতা বিবেচনা করে কতটি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট গ্রহণ করা হবে, তা নির্ধারণ করা হবে। সে ক্ষেত্রে কমবেশি চার শ ইউপিতে প্রথম ধাপে ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত হতে পারে। এ ক্ষেত্রে বরিশাল বিভাগসহ উপকূলীয় এলাকা প্রাধান্য দেয়া হবে। বর্ষা মৌসুমে উপকূলীয় এলাকায় ভোটকেন্দ্রে মালামাল পরিবহন কষ্টকর হয়ে পড়ে।

এই পাতার আরও সংবাদ:-




টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-
Theme Customized BY WooHostBD