1. nahidprodhan143@gmail.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  2. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  3. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  4. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  5. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  6. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
  7. subeditor@narsingdipratidin.com : Narsingdi Pratidin : Narsingdi Pratidin
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৩:২৬ অপরাহ্ন



নরসিংদীর পলাশে মোড়ে মোড়ে অবৈধ টোল আদায়, নাজেহাল পাঁচশতাধিক সিএনজি চালক

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | সোমবার, ২৯ মে, ২০১৭

 লক্ষন বর্মন, নরসিংদী: নরসিংদীর পলাশ উপজেলার রাস্তার মোড়ে মোড়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড। এসব সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে প্রতিদিন আদায় করা হচ্ছে লক্ষাধিক টাকার টোল চাঁদা। আর এসব অবৈধ টোল চাঁদা দিতে গিয়ে নাজেহাল হয়ে পড়েছে উপজেলার পাঁচশতাধিক সিএনজি চালক। ফলে নির্ধারিত ভাড়ার বদলে যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া। এছাড়া এসব সিএনজি স্ট্যান্ডে দীর্ঘসময় লাইনে বসিয়ে রাখার কারণে অনেক যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে । জানা যায়, পলাশ উপজেলায় প্রায় ১ কিলোমিটার দুরত্ব বজায় রেখে প্রতিটি মোড়ে মোড়ে গড়ে উঠা ইজারা বিহীন স্ট্যান্ডে ১০ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত টোল আদায় করা হচ্ছে। এর মধ্যে ঘোড়াশালে মাত্র ১০০ গজের মধ্যে রয়েছে তিনটি সিএনজি স্ট্যান্ড। যা থেকে ৩০ টাকা করে ৯০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এছাড়া পলাশ জামলাপুর ঘাট এলাকায় ৩০, ওয়াপদা এলাকায় ১০, বিএডিসি মোড় ১০, বিএডিসি বাসস্ট্যান্ড ৩০, চরসিন্দুর ৩০, তালতলি ১০, পারুলিয়া ২০, চরর্ণগর্দী বাজার ২০, পাঁচদোনায় ৭০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এর মধ্যে দুএকটিতে রশিদের মাধ্যমে টোল আদায় করা হলে ও বাকি গুলোতে চলছে রশিদ বিহীন চাঁদা আদায়ের মহাউৎসব। আর এসব আদায়কৃত অর্থ একটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ভাগবাটোয়ারা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলায় নিয়মিত সিএনজি চালক শাহাআলম, আমির হোসেন , সোহাগ মিয়া, আলী হোসেন (বাবু) ও আরিফুলসহ বেশ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, প্রতিদিন একজন সিএনজি চালক ঘোড়াশাল পৌরসভার চাঁদাসহ আরো ১০ থেকে ১২টি স্ট্যান্ডে গাড়ি প্রতি দুইশ থেকে আড়াইশ টাকা দিতে হচ্ছে। টাকা না দিলে যাত্রী নামিয়ে দেয়, আবার অনেক সময় গাড়ির চাবিও রেখে দেয়। সরাদিন গাড়ি চালিয়ে যে কয় টাকা আয় করি তা থেকে গাড়ির জমা ও স্ট্যান্ড চাঁদা দিয়ে অনেক সময় বাজার-সদাইও করতে পারি না। এসব স্ট্যান্ড চাঁদা দিতে গিয়ে অনেক সময় আমাদের যাত্রীদের থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে হচ্ছে।
এসব বিষয়ে স্যান্ডগুলোর টোল আদায়কারীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, তারা স্থানীয়দের সহযোগীতা নিয়ে স্ট্যান্ড স্থাপন করেছেন, স্ট্যান্ড পরিচালনা করার ও সিরিয়ালকারীর দৈনিক খুরাকির জন্য টোল আদায় করা হয়।
ঘোড়াশাল পৌর মেয়র শরিফুল হক শরিফ জানান, পৌরসভা থেকে শুধু মাত্র হাতেম নামে একজনকে একটি স্ট্যান্ড ইজারা দেওয়া হয়েছে। যা থেকে রশিদের মাধ্যমে ২০ টাকা আদায় করবে। বাকিগুলো পৌরসভা থেকে অনুমতি নেওয়া হয়নি।
এব্যাপারে পলাশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার জানান, অনুমতি বীহিন স্ট্যান্ড দিয়ে চাঁদা আদায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ । উপজেলার অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এই পাতার আরও সংবাদ:-





টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-
Theme Customized BY WooHostBD