1. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  2. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  3. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  4. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  5. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৭ অপরাহ্ন

সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সাত বাংলাদেশির মধ্যে দুইজনের বাড়ি নরসিংদীতে

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | রবিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০১৮

নরসিংদী প্রতিদিন: সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সাত বাংলাদেশির মধ্যে দুইজনের বাড়ি নরসিংদীতে। এদের মধ্যে আমির হোসেন এর বাড়ি নরসিংদীর সদর উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের বাউশিয়া গ্রামে। তবে ইদন নামে নরসিংদীর আরেকজন নিহতের নাম আসলেও তার ঠিকানা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
এদিকে আজ সকালে সৌদি আরবে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত আমির হোসেনের বাড়িতে গেলে দেখা যায় স্তব্ধ পরিবেশ। শোকে পাথর হয়ে আছে নিহতের পরিবার ও তার স্বজনরা। মুখে কান্না না থাকলেও চোখে ঝরছে অঝোর ধারা।
পরিবারের একমাত্র চালিকাশক্তি আমির হোসেনকে হারিয়ে তার পরিবার এখন দিশেহারা। সরকারের মাধ্যমে দ্রুত মৃতদেহ ফিরে পাবার দাবী জানিয়েছে পরিবার ও স্বজনরা। শেষবারের মতো তার চেহারা দেখতে চায় তারা।
পাশাপাশি এই নি:স্ব পরিবারের জন্য সরকারি সহযোগিতার দাবী জানিয়েছে নিহতের স্বজনরা।
নিহত আমির হোসেনের স্ত্রী শাহেনা আক্তার বলেন, আমরা রাতে ফোন পেয়েছি। আমির হোসেন ৮ বছর যাবৎ বিদেশ করে আসছে। গত দুই বছর আগে দেশে এসে ছিল এবারও আসার কাগজ জমা দিয়েছিল। কিন্তু তার আর আসা হল না, আমার সব শেষ হয়ে গেছে। দুই ছেলে-মেয়েকে নিয়ে আমি এখন কি করব।
আমির হোসেনের ছেলে রবিউল্লা বলেন, আমার বাবা সৌদিতে মারা গেছে। আমরা এতিম হয়ে গেছি। মা ও ভাই-বোন নিয়ে কি করে চলব। সরকার যদি আমাদের সাহায্য করে তাহলে আমরা চলতে পারব।
আমির হোসেনের বড় ভাই মনির হোসেন বলেন, আমার ভাইটা সৌদি মারা গেছে। তার ছেলে-মেয়েরা এতিম হয়ে গেল।
আমির হোসেনের চাচাত ভাই ছগির হাসান বলেন, সরকারের মাধ্যমে আমার ভাইয়ের লাশটা যেন তারাতারি দেশে আসে। শেষবারের মতো তার লাশটা দেখতে পেতে পারি, তার পরিবার, সমাজ সবাই যেন তাকে দেখতে পারে। আমার চাচাত ভাইয়ের ছেলে-মেয়েরা এতিম হয়ে গেল, এখন তারা কিভাবে সংসার চলাবে। তার আপন বড় ভাই সহজ সরল সে নিজেই সংসার ঠিকমত চলাতে পারেনা। সরকারের কাছে আমার অনুরোধ তাদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা করার জন্য।

উল্লেখ্য, স্থানীয় সময় শনিবার সকালে সৌদির জিজান প্রদেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। শনিবার সকালে কোম্পানির পিকআপে করে তারা মোট ২৭ জন কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। এসময় একটি গাড়ির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে পিকআপটি উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ৮ জন শ্রমিক নিহত হন। হাসপাতালে নেয়ার পর আরো একজনের মৃত্যু হয়। এদের মধ্যে সাতজনই বাংলাদেশি।
হতাহতরা সবাই জিজান প্রদেশের আল ফাহাদ কোম্পানির পরিচ্ছন্নতাকর্মী।



এই পাতার আরও সংবাদ:-





টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-
Theme Customized BY WooHostBD