1. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  2. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  3. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  4. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  5. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

নরসিংদীতে পোকা দমনে ‘হলুদ ফাঁদ’

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | মঙ্গলবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০১৮

নরসিংদী প্রতিদিন ডেস্ক: ফসলের ক্ষতিকর পোকা দমনে নতুন পদ্ধতি ‘হলুদ ফাঁদ’ ব্যবহারে আগ্রহ বাড়ছে নরসিংদীর কৃষকদের। এর মাধ্যমে তারা বিষমুক্ত সবজি আবাদে যেমন সফল হচ্ছেন, তেমনি কমছে কীটনাশক প্রয়োগের বাড়তি খরচ। আর জেলাজুড়ে নতুন এ পদ্ধতির প্রসার ও কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণে কাজ করছে কৃষি বিভাগ।
কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা ও স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিষমুক্ত ও কম খরচে সবজি উৎপাদনে নরসিংদীর বিভিন্ন উপজেলায় সবজি ক্ষেতে এ ফাঁদ বসানো হয়েছে। এ পদ্ধতিতে হলুদ রঙে আকৃষ্ট হয়ে ক্ষতিকর পোকা আঁঠালো ফাঁদে বসে আটকা পড়ে। ফলে পোকা দমনে কৃষককে কীটনাশক বা বিষ ব্যবহার করতে হয় না। স্থানীয় কৃষকরা জানান, প্রতি হেক্টর জমিতে গড়ে ৩০-৪০ হাজার টাকার বিষ প্রয়োগ করতে হয়। কিন্তু একই পরিমাণ জমিতে হলুদ ফাঁদে খরচ হচ্ছে মাত্র ৭-৮ হাজার টাকা। এতে তাদের উৎপাদন খরচ কমে যাচ্ছে বহুগুণ। পাশাপাশি উৎপাদন হচ্ছে বিষমুক্ত সবজি। আর বাজারে এসব বিষমুক্ত সবজির চাহিদা থাকায় ভালো দামও পাচ্ছেন তারা। পদ্ধতিটি লাভজনক হওয়াতেই এর প্রতি কৃষকদের দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে। বিভিন্ন স্থানের মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলার বৃহত্তর চরাঞ্চল আলোকবালীতে পরীক্ষামূলকভাবে ‘হলুদ ফাঁদ’ ব্যবহার করে ৩০ বিঘা জমিতে উচ্ছে আবাদ করা হয়েছে। এতে ভালো ফল পাওয়ায় ফাঁদটি ব্যবহারে আগ্রহী হচ্ছেন আশপাশের কৃষকরা। সদর উপজেলার শীলমান্দি গ্রামের কৃষক সিরাজ মিয়া বলেন, হলুদ ফাঁদ ব্যবহার করে সহজেই শিম ক্ষেতের পোকা দমন করতে পারছি। এতে কীটনাশক কেনার খরচ কমে গেছে। বিষমুক্ত হওয়ায় শিমের দামও মিলছে ভালো।
আলোকবালী ইউনিয়নের বীরগাঁও গ্রামের কৃষক নয়ন মিয়া জানান, সবজি আবাদে বিষ প্রয়োগ করেও সবসময় পোকা দমন হয় না। এতে উৎপাদন খরচও বাড়ে, ফসলেরও ক্ষতি হয়। অন্যদিকে হলুদ ফাঁদ পোকা দমনে একটি সহজ, সাশ্রয়ী ও কার্যকর পদ্ধতি।
বাখরনগর এলাকার অন্য কৃষক জালাল মিয়া বলেন, জেলা কৃষি বিভাগের পরামর্শে হলুদ ফাঁদ ব্যবহার করে পোকা দমন করতে পেরেছি। সব ধরনের সবজি ক্ষেতেই এ ফাঁদ ব্যবহার করা যায়।
নরসিংদী সদর উপজেলার আলোকবালী ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. ইব্রাহিম মিয়া জানান, সদর কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য আলোকবালীর চরে ৩০ বিঘা জমিতে ব্যবহারের জন্য বিনামূল্যে হলুদ ফাঁদ বিতরণ করা হয়। এতে পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করে পোকা দমনে সফল হয়েছেন কৃষকরা। দিন দিন সব ধরনের সবজিতে এ ফাঁদ ব্যবহার করতে আগ্রহী হচ্ছেন কৃষকরা। নরসিংদী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. লতাফত হোসেন জানান, এ বছর জেলায় এক হাজার হেক্টর জমিতে হলুদ ফাঁদ ব্যবহার করা হয়েছে। সফলতা পাওয়ায় বিষমুক্ত নিরাপদ সবজি উৎপাদনে কৃষকদের মধ্যে এ জনপ্রিয়তা বাড়ছে। কৃষি বিভাগও ফাঁদটির সম্প্রসারণে কাজ করে যাচ্ছে।



এই পাতার আরও সংবাদ:-





টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-
Theme Customized BY WooHostBD