1. nahidprodhan143@gmail.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  2. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  3. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  4. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  5. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  6. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
  7. subeditor@narsingdipratidin.com : Narsingdi Pratidin : Narsingdi Pratidin
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০২:৫৭ অপরাহ্ন



নরসিংদীতে প্রেমিক-প্রেমিকার ভিডিও ধারন ও ব্ল্যাকমেইলের কারনেই নৃসংশ ভাবে যুবক খুন,আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্ধি

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮

লক্ষন বর্মন,নরসিংদী প্রতিদিন: নরসিংদীর হাজিপুরে প্রেমিকার সাথে মেলামেশার গোপন ভিডিও ধারন ও ব্ল্যাকমেইলের কারনেই নৃসংশ ভাবে খুন হয় হৃদয় সাহা নামে এক যুবক। কথিত প্রেমিক গঁলায় ফাঁস দিয়ে ও লিঙ্গ কেটে তার মৃত্যু নিশ্চিত করেন। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকক্তিমূলাক জবানবন্ধিতে এমন তথ্যই দিয়েছেন খুনের সাথে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার কৃত দুই যুবক।
আদালত সূত্রে যানা যায়, গত ২৯ জানুয়ারী নিখোজ হয় নরসিংদী হাজিপুরের গোপাল চন্দ্র সাহার ছেলে হৃদয় সাহা (২৫)। দুই দিন পর রায়পুরা মির্জানগর বাহেরচর এলাকার একটি কবরস্থানে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নিহতের বাড়িতে খবর দেয়। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই বাদি হয়ে রায়পুরা থানা হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনাটি চাঞ্চলকর উল্লেখ করে মামলাটি জেলা গোয়েন্দা পুলিশ নিকট হন্তান্তর করেন পুলিশ সুপার আমেনা বেগম।
দীর্ঘ তদন্ত ও অনুসন্ধান শেষে হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে হাজিপুর এলাকার ফজলুল হকের ছেলে রুবেল মিয়া (২৬)কে আটক করে। পরে তার দেয়া তথ্য মতে একই এলাকার হারাধন দাসের ছেলে কথিত প্রেমিক বাদল দাসকে গ্রেপ্তার করেন। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত দুই যুবক হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন। পরে গোয়েন্দা পুলিশ তাদের বিজ্ঞ সিনি:জুডি: ম্যাজি: ওয়াইজ আল কুরুনির আদালতে শোপর্দ করেন। পরে তারা আদালতের বিজ্ঞ বিচারকের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকক্তিমূলাক জবানবন্ধি প্রদান করেন।
জবানবন্ধিতে গ্রেপ্তারকৃত বাদল উল্লেখ করেছেন প্রচন্ড জেদ ও ব্ল্যাকমেইলের কারনেরই হৃদয়কে খুনের সিদান্ত নেন। গ্রেপ্তারকৃত বাদল ও নিহত হৃদয় দুুই জনই ঘনিষ্ট বন্ধু ছিলেন। এলকার একজন বিবাহিতা মহিলার সাথে বাদলের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। সেই সূত্রে প্রেমিক-প্রেমিকার ঘনিষ্ট মুহুর্তের কিছু ভিডিও মোবাইল ফোনে রেকর্ড করা হয়। কিছু ভিডিও ক্লিপ হৃদয়ের হাতে চলে যায়। এর সূত্র ধরে নিহত হৃদয় ওক্ত মহিলাকে ব্ল্যাকমেইল শুরু করেন। একপর্যায়ে অর্থনৈতিক সুবিদাও নেয়। বিষয়টি বাদলের কানে আসলে সে হৃদয়ের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়। এবং তাকে খুন করার পরিকল্পনা শুরু করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী বাদল তার বন্ধু রুবেল ও নিহত হৃদয় এক সাথে ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান করেন। পরে রায়পুরা আমিরগঞ্জ ব্রীজ এলাকায় গিয়ে ৩ বন্ধু মাদক সেবন করেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে গাঁজা সেবনের উদ্যেশে মির্জানগর বাহেরচর এলাকার নির্জন একটি কবরস্থানে যান। সেখানে গাঁজা সেবন করেন। গাঁজা সেবন কালে রশি দিয়ে তার গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে নিহতের লিঙ্গে আঘাত করা হয়।
মামলার আইয়ু গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আব্দুল গাফফার বলেন, প্রচন্ড জেদ ও ব্ল্যাকমেইলের কারনেই এই হত্যা। চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকান্ডটি একবারেই ক্লু-লেইস ছিল। আইন এর চোখ ফাঁকি দিতে ভিন্ন একটি উপজেলায় নিয়ে তাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়। দীর্ঘ অনুসন্ধান,তদন্ত ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা খুনের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে হত্যার মূল রহস্য উদঘাটন সম্ভব হয়েছে।

#

এই পাতার আরও সংবাদ:-





টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-
Theme Customized BY WooHostBD