1. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  2. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  3. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  4. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  5. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন

মনোহরদীতে ৩ বছরের শিশুকে বিক্রি করে দিলেন পাষন্ড দাদা

ডেস্ক রিপোর্ট | নরসিংদী প্রতিদিন
  • প্রকাশের তারিখ | সোমবার, ২৮ অক্টোবর, ২০১৯

স্টাফ রিপোর্টার। নরসিংদী প্রতিদিন-
সোমবার ২৮ অক্টোবর ২০১৯
নরসিংদীর মনোহরদী থানার একদুয়ারিয়া ইউনিয়নের ব্রজেরকান্দি গ্রামে মায়ের কোল খালি করে ৩ বছরের শিশুকে জোর পূর্বক নিয়ে গিয়ে বিক্রি করে দিল শিশুটির পাষন্ড দাদা হাতিরদিয়া রাজিউদ্দিন ডিগ্রী কলেজের কেরানী মহি উদ্দিন।

পরিবার ও এলাকার সুত্রে জানাযায়, ৪ বছর পূর্বে একদুয়ারিয়া ইউনিয়নের ব্রজেরকান্দি গ্রামের ফালু মিয়ার ছোট মেয়ে মারুফা আক্তার (১২) কেরানী মহি উদ্দিনের বাড়ী কাজ করত। ঐ সময় মহিউদ্দিনের ছেলে ডাচবাংলা ব্যাংকে কর্মরত বাছেদ(১৯) এর লালসার শিকার হন অবলা নাবালিকা মারুফা। প্রেমের ফাঁদে ফেলে ফুঁসলিয়ে ফাঁসলিয়ে পঞ্চম শ্রেণী পড়োয়া মারুফার সাথে অবৈধ শারিরীক সম্পর্ক গড়ে তুলে বাছেদ। পরবর্তিতে অবৈধ সম্পর্কের জেরধরে মারুফা গর্ভবতি হলে, পরিবারে প্রকাশ পাইলে মারুফার শাশুরি গর্ভপাত নষ্ট করার জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে অসুধ খাইয়ালেও বাচ্ছা নষ্ট করতে ব্যর্থ হয়। এলাকায় ঘটনাটি প্রকাশ হলে সমাজের চাপে বাধ্য হয়ে মৌলভী দিয়ে বাছেদের সাথে মারুফার বিয়ে দেন মহিউদ্দিন কেরানী। কিন্তু বাচ্ছা প্রসব হওয়ার কিছুদিন পর পিতা মহি উদ্দিন কেরানী এবং এলাকার মাতব্বর আফছুর উদ্দিন মাস্টার, অরুন মিয়া ও স্থানীয় মেম্বার জসিম মৃধার সহযোগীতায় রফাদফা করে ৩ লক্ষ টাকার বিনিময়ে বাচ্ছাসহ মারুফাকে তালাক দেয় বাছেদ। ৩ বছর শিশুটিকে মা মারুফা লালন পালন করলেও গত ৭ দিন পূর্বে স্থানীয় মাতব্বর আফছুর উদ্দিন মাস্টার, অরুন মিয়া ও স্থানীয় মেম্বার জসিম মৃধার সহযোগীতায় শিশুটির পিতা বাছেদ ও দাদা মহি কেরানী মারুফার কাছ থেকে জোর পূর্বক সাদা কাগজে সই নিয়ে মায়ের কোল থেকে শিশুটিকে নিয়ে যায়।
মারুফা ও এলাকাবাসী গণমাধ্যমকে জানান, টাকার বিনিময়ে শিশুটিকে বিক্রি করে দিয়েছে পাষন্ড দাদা মহি কেরানী। এই বিষয়ে মহি কেরানীর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান এলাকার মাতাব্বর ও স্থানীয় মেম্বারের মাধ্যমে ৮ লক্ষ টাকা খরচ করে সকল সমস্যার সমাধান করে দিয়েছি। আমার মান-ইজ্জত রক্ষার্থে বাচ্চাটিকে আমি অন্যত্র রেখে দিয়েছি। কিন্তু বাচ্চাটিকে গনমাধ্যম কর্মীকে দেখাতে ইচ্ছুক নন মহি কেরানী।
বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে, তিনি বলেন, পূর্বে কি হয়েছে, তা আমি অবগত নই। তবে শিশুটি মার কোল থেকে কেরে নেওয়া হয়েছে বলে শুনেছি, শিশুর মা আমার কাছে তার শিশুটি পাওয়ার আকুতি জানালে আমি মহি উদ্দিনকে ডেকে সবকিছু বিস্তারিত শুনে, দুই দিনের মধ্যে শিশুটিকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে মহি উদ্দিনকে বলেছিলাম। কিন্তু আজ ৫ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও, তার মা শিশুটিকে এখনো ফেরৎ পায়নি বলে জানিয়েছে। আমি এই বিষয়টি নিয়ে সম্পন্নই ব্যর্থ, আমার মনে হয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়াই উত্তম।
ভূক্তভোগী নাবালিকা মারুফা গণমাধ্যমকে জানান আমি আমার স্বামীর অধিকার ও সন্তানকে ফিরে পেতে চাই এবং স্বামী ও সন্তানকে নিয়ে সংসার করতে চাই।



এই পাতার আরও সংবাদ:-





DMCA.com Protection Status
টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-নরসিংদী প্রতিদিন-
Theme Customized BY WooHostBD