1. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  2. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  3. shahinit.mail@gmail.com : narsingdi : নরসিংদী প্রতিদিন
  4. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  5. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞাপণ দিতে ০১৭১৮৯০২০১০

ইউক্রেনে পারমাণবিক হামলার ‘ঝুঁকি বাড়ছে’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | নরসিংদী প্রতিদিন-
  • প্রকাশের তারিখ | বৃহস্পতিবার, ৭ এপ্রিল, ২০২২
  • ৯৪ পাঠক

ইউক্রেনে রুশ বাহিনী কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গেই রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা কমে আসছে, এমন দাবি পশ্চিমাদের। এদিকে ইউক্রেনকে সহায়তায় ন্যাটোভুক্ত দেশ ট্যাংকের মতো আক্রমণাত্মক অস্ত্র সরবরাহ করছে।

যদিও সরাসরি ন্যাটোভুক্ত কোনো দেশ ইউক্রেন যুদ্ধে জড়ায়নি, এরপরেও ইউক্রেনকে অস্ত্র দেয়ার বিষয়টি ভালো চোখে দেখছে না রাশিয়া। এমন অবস্থায় যে কৌশলগত পরমাণু বোমা ব্যবহারকে একসময় অসম্ভব ভাবা হতো, তার সম্ভাবনা এখন বাড়ছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৯১ সালে স্নায়ুযুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়ার পর কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্রগুলো আর কৌশলগত চিন্তার অংশ নয়। কিন্তু ইউক্রেন যুদ্ধে এই অস্ত্র ব্যবহারের আশঙ্কা ক্রমে বাড়ছে।

১৯৬২ সালে কিউবায় ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন নিয়ে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে পারমাণবিক সংঘাতে জড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল। এখন প্রায় ৫০ বছর পর এসে আবারও ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান পারমাণবিক সংঘাতের বিষয়টি আবারও সামনে নিয়ে আসছে।

কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র আসলে কী

পারমাণবিক বোমা প্রকৃত অর্থে একটি ব্যাপক ধ্বংসাত্মক অস্ত্র। কিন্তু যুদ্ধক্ষেত্রে সামরিক কমান্ডারদের সুবিধা দিতে আরও নমনীয়, অপেক্ষাকৃত ছোট থার্মোনিউক্লিয়ার বোমা তৈরি ও পরীক্ষা শুরু হয় ১৯৫০-এর মাঝামাঝি সময় থেকে।

একবিংশ শতাব্দীতে এসে পরমাণু ওয়ারহেডগুলো আরও আধুনিক হয়েছে। যেখানে একজন অপারেটর একটি পারমাণবিক বোমার ধ্বংস ক্ষমতা নির্দিষ্ট করে দিতে পারবে। যেখানে একটি কৌশলগত পারমাণবিক বোমা ১ কিলোটনের ভগ্নাংশ থেকে ৫০ কিলোটন পর্যন্ত হতে পারে। এক কিলোটনের বিস্ফোরণ ক্ষমতা ১ হাজার টন টিএনটির সমান।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় হিরোশিমায় বিস্ফোরিত ‘লিটল বয়’ পারমাণবিক বোমার বিস্ফোরণ ক্ষমতা ছিল ১৫ কিলোটন।

কৌশলগত পারমাণবিক বোমা বিরোধী সৈন্যের সংখ্যা, জাহাজ, মার্শালিং ইয়ার্ড, বিমান ঘাঁটির আকারের ওপর নির্ভর করে ব্যবহার করার বিষয়টি বিবেচনা করা হয়েছিল।

স্নায়ুযুদ্ধের সময়, শুধু চেকোস্লোভাকিয়ার সেনাবাহিনী প্রাথমিক আক্রমণের অংশ হিসেবে ন্যাটো লক্ষ্যবস্তুতে ১৩১টি পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার পরিকল্পনা প্রস্তুত করে রেখেছিল।

ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোরও পারমাণবিক হামলার জবাব দেয়ার নির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছিল।

এরপরও যুদ্ধক্ষেত্রে এ ধরনের অস্ত্রের ব্যবহার মুহূর্তেই যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়ার মতো দেশ ধ্বংস হয়ে যেতে পারে।

ধ্বংসের এত আশঙ্কা পরও কেউ কেন এই ঝুঁকি নেবে?

রাশিয়া এই যুদ্ধে এখন পর্যন্ত কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারেনি। দেশটির সশস্ত্র বাহিনীর যে গর্বের ইতিহাস, তা এরই মধ্যে ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। কমে গেছে রাশিয়ার আন্তর্জাতিক মর্যাদা।

এমন পরিস্থিতিতে কৌশলগত পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে রাশিয়া। কারণ পুতিন আর যাই হোক, পরাজয় চাইবেন না। ইউক্রেনে পরাজিত হয়ে ফিরে আসা রাশিয়ার পরাশক্তির ভাবমূর্তিকে ক্ষুণ্ণ করবে।

তবে রাশিয়া যদি ইউক্রেনে সীমিত পরিসরেও পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার করে, তাতে পশ্চিমাদের প্রতিক্রিয়া কী হবে? তা বলা মুশকিল।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, রাশিয়া যদি পারমাণবিক, রাসায়নিক বা জীবাণু অস্ত্রের হামলা চালায়, যুক্তরাষ্ট্র চুপ করে বসে থাকবে না।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এখন পর্যন্ত পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার হয়নি। এদিকে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার নিয়ে ওয়ারশোতে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়, যা ওয়ারশো মেমোরেন্ডাম নামে পরিচিত।

যদিও সেই চুক্তি পশ্চিমারাই লঙ্ঘন করেছে ও পূর্ব ইউরোপের সোভিয়েত ব্লকের অনেকেই এখন ন্যাটো সদস্য। এমন কি ইউক্রেনের সঙ্গে প্রাথমিক বিরোধও ন্যাটোর সদস্য হওয়া নিয়েই।

এখন প্রশ্ন হলো ইউক্রেনকে পরাজিত করতে পুতিন কী পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা থেকে বেরিয়ে আসবেন?



এই পাতার আরও সংবাদ:-



বিজ্ঞাপণ দিতে ০১৭১৮৯০২০১০



DMCA.com Protection Status
টিম-নরসিংদী প্রতিদিন এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে শাহিন আইটি এর একটি প্রতিষ্ঠান-নরসিংদী প্রতিদিন-
Theme Customized BY WooHostBD