1. nahidprodhan143@gmail.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  2. khandakarshahin@gmail.com : Breaking News : Breaking News
  3. laxman87barman@gmail.com : laxman barman : laxman barman
  4. narsingdipratidin.mail@gmail.com : narsingdi :
  5. news@narsingdipratidin.com : নরসিংদী প্রতিদিন : নরসিংদী প্রতিদিন
  6. msprovat@gmail.com : ms provat : ms provat
  7. hsabbirhossain542@gmail.com : সাব্বির হোসেন : সাব্বির হোসেন
  8. subeditor@narsingdipratidin.com : Narsingdi Pratidin : Narsingdi Pratidin
সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শিবপুরে বমসা’র প্রকল্প উদ্বোধন উপলক্ষে কর্মশালা অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে মানবিক মেয়র কামরুলের উদ্যোগ: নরসিংদীতে সেলাই মেশিন ও হুইল চেয়ার পেল শতাধিক দুস্থ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন যুদ্ধ রোবট উন্মোচন ইরানের আইএসের হুমকিতে আফগানিস্তান ছাড়ছে হিন্দু ও শিখরা অবশেষে ঘুম ভাঙল নারায়ণগঞ্জ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের ধর্ষনের বিচার দাবিতে ময়মনসিংহে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল বিটিভির সাবেক মহাপরিচালক ওয়াজেদ আলী খানের মৃত্যু কাপ্তাইয়ে ভ্রাম্যমান অভিযানে ৭দোকান হতে জরিমানা আদায় মাধবদীতে মানব কল্যান সেবামূলক প্রতিষ্ঠান ও ইসলামী পাঠাগারের বর্ষপূর্তি উদযাপন করোনায় ঢাকা-চট্টগ্রামে কাজ বন্ধ করে দেওয়া মানুষের ৬৮ শতাংশ চাকরি হারিয়েছে



নরসিংদী সরকারী কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি দায় স্বীকার করলেন অধ্যক্ষ আনোয়ারুল ইসলাম

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী প্রতিদিন, শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮: নরসিংদী সরকারী কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির দায় স্বীকার করেছেন অধ্যক্ষ ড. আনোয়ারুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার দুপুরে দূর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে আন্দোলনরত ছাত্রদের নিয়ে কলেজ অধ্যক্ষের মুখোমুখি হন ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি শামীম নেওয়াজ। তিনি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ নিয়ে কলেজ অধ্যক্ষ কে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে প্রশ্ন করেন। এর আগে বিভিন্ন গনমাধ্যমে অধ্যক্ষের বরাদ দিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয় যে, কতিপয় ছাত্র নেতাদের অবদার মেটাতে কিছু অনিয়ম হয়েছে। এ বিষয়ে অধ্যক্ষ কে প্রশ্ন করা হয় কোন ছাত্র নেতার কারনে তিনি অনিয়ম করেছেন। অধ্যক্ষ এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোন জবাব দিতে পারেন নি। এক পর্যায়ে তিনি স্বীকার করেন মুখ ফসকে তিনি এ কথা বলেছেন। কলেজ এর অডিট করতে আসা ব্যাক্তিদেও কে ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ দিয়েছেন বলেও স্বীকার করেন তিনি। ওই অডিট কমিটি অধ্যক্ষে বিরুদ্ধে ৫০ লক্ষ টাকা আত্নসাতের অভিযোগ আনে। সে অভিযোগ থেকে রেহাই পেতেই তিনি
এই ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ প্রদান করেন। এই ঘুষের টাকা কলেজের বিভিন্ন খাতের টাকা থেকে দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া বিভিন্ন সময় ভর্তি, সেমিষ্টার ও ব্যবহারিক পরীক্ষায় অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের প্রমানসহ ছাত্ররা অধ্যক্ষ কে জানালেও সেসব অভিযোগের বিষয়ে কোন ধরনের পদক্ষেপ নেয়নি অধ্যক্ষ। কলেজ এর কয়েকজন শিক্ষকদের নিয়ে সিন্ডিকেট করে বিভিন্ন কাজ দেখিয়ে অর্থ আত্নসাতের বিষয়ে তিনি সঠিক জবাব দিতে পারেন নি। পরে আন্দোলনরত ছাত্ররা সঠিক তদন্তের স্বার্থে অধ্যক্ষ কে কলেজ ছাড়ার জন্য ৩ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে।
নরসিংদী সরকারী কলেজের সাবেক ভিপি ও জিএস শামীম নেওয়াজ সাংবাদিকদের জানান, কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্ররা আন্দোলন করে আসছে। নরসিংদী সরকারী কলেজ আমাদের গর্ব ও ঐতিহ্য। এই কলেজের ইতিহাসে কোন অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ এনে আন্দোলন হয়নি। এই বিষয়টি আমাদের খুব ব্যাথিত করে তুলেছে। নরসিংদী সরকারী কলেজ থেকেই আমার রাজনৈতিক জীবন শুরু। কলেজের ছাত্র সংসদের জিএস ও ভিপি নির্বাচিত হয়ে সঠিকভাবে দয়িত্ব পালন করেছি। কলেজের সাবকে ছাত্র ও ছাত্র নেতা হিসেবে কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা আমার কাছে তাদের দুঃখ ও কষ্টগুলি শেয়ার করে। ছাত্ররা বিভিন্ন অনিয়ম হাতেনাতে ধওে মোবাইলে ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করেছ। শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ ও চলমান আন্দোলন আমাদের বিব্রত করেছে। কিন্তু কলেজ অধ্যক্ষের বরাদ দিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয় যে কতিপয় ছাত্র নেতাদের আর্থিক সুবিধা দেয়ার কারনে তিনি দূর্নীতি করেছেন। সাবেক ছাত্র নেতা হিসেবে বিষয়টিকে খুব গুরুত্বেও সাথে নিয়েছি আমি। সর্বশেষ কলেজ সংসদ এর নির্বাচিত ভিপি আমি। আমার সময় আমাদের সংসদ কলেজের উন্নয়নে সফল ভূমিকা পালন করেছে। আমারা এখন কলেজে নেই। কোন ছাত্র নেতা অধ্যক্ষকে দূর্নীতি করতে বাধ্য করেছে এমন তথ্যও আমাদের কাছে নেই। এছাড়া অধ্যক্ষের দূর্নীতি ঢাকতে অডিট কমিটিকে ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ প্রদান করা হয়েছে। এসব বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ব্যাখ্যা জানতে ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও সাংবাদিকদরে সামনে অধ্যক্ষকে প্রশ্ন করা হয়। ছাত্র নেতারা দূর্নীতির সাথে জড়িত এমন কোন তথ্য তিনি দিতে পারেন নি। অডিটি কমিটিকে ১০ লক্ষ ঘুষ প্রদানের বিষয়টিও তিনি সবার সামনে ও সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছেন। ছাত্রদের আন্দোলন সুনির্দিষ্ট ও যৌক্তিক হওয়ায় আমি তাদের আন্দোলনের সাথে একাত্নতা প্রকাশ করেছি। তদন্ত চলাকালীন তিনি যেন কোন প্রভাব বিস্তার করতে না পারেন সেজন্য অধ্যক্ষ কে কলেজ ছেড়ে দেবার জন্য ৩ দিনের সময় দিয়েছে ছাত্র-ছাত্রিরা।

follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
শাহিন আইটির একটি অঙ্গ-প্রতিষ্ঠান